মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সিটিজেন চার্টার

(ক) ইমাম প্রশিক্ষনঃ বরিশাল ইমাম প্রশিক্ষন একাডেমীতে বছরে ৫/৬টি ব্যচে ৪৫ দিন ব্যাপী নিয়মিত ইমাম  প্রশিক্ষন কোর্সে আগ্রহী  ইমামগন অংশ গ্রহন করতে পারেন । এ জন্য পত্রিকায় কেন্দ্রীয় ভাবে  বিজ্ঞাপন প্রদান করা হয়। বিজ্ঞাপনে উল্লেখিত তারিখে জেলা কার্যালয়ে উপ-পরিচালক বরাবর আবেদন করতে হয়।

(খ) ইমাম মুয়াজ্জিন কল্যান ট্রাষ্টঃইমাম মুযাজ্জিনগণ এ  কল্যান ট্রাষ্ট্রের সদস্য হতে পারেন। মাসিক চাঁদা জন প্রতি ১০/= (দশ ) টাকা সংশ্লিষ্ট শাখায় জমা দিয়ে রশিদ গ্রহন করতে হয় । আবেদনের প্রেক্ষিতে এ টাকা হতে প্রধান কার্যালয়ের অনুমোদন ও বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে বিনা লাভে ঋণ এবং এক কালীন সাহায্য (অফেরত যোগ্য ) প্রদান করা হয়।

(গ) বই বিক্রয়ঃইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রকাশিত তাফসীর, হাদীসের অনুবাদ গ্রন্থ,  গবেষনা মূলক বই,  মাসিক অগ্রপথিক,  মাসিক সবুজ পাতা ও ত্রৈমাসিক পত্রিকা নির্ধারিত কমিশনে বিক্রয় করা হয়।

(ঘ)  ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতাঃ  প্রতি বছর উপজেলা থেকে পর্যায়ক্রমে জেলা , বিভাগ  ও জাতীয় পর্যায়ে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় । উপজেলার স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা এ প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করেন। এ জন্য স্কুল ও মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষকে পত্র দ্বারা অবহিত করা হয়। উপজেলা পর্যায়ের বিজয়ী গণ জেলা পর্যায়ে এবং জেলা পর্যায়ের বিজয়ী গণ বিভাগীয় পর্যায়ে অংশ গ্রহণের সুযোগ পান। বিভাগ পর্যায়ে বিজয়ী গণ জাতীয় পর্যায় অংশ গ্রহণের সুযোগ পান।

(ঙ) মসজিদ পাঠাগারঃনির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। আবেদন বাছাই করে চাহিত স্থান পরিদর্শন করে প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হয়। প্রধান কার্যালয়ের  অনুমোদনের পর পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়। (বর্তমানে এ কর্মসূচীটির ৭ম পর্যায় অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে)

(চ) মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমঃনির্ধারিত মসজিদে প্রাক-প্রাথমিক , বয়স্ক শিক্ষা ও সহজ কুরআন শিক্ষার কোর্স পরিচালনা করা হয়। মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমঃ এই প্রকল্পের অধীনে অত্র জেলায় ২১৮ টি প্রাক-প্রাথমিক, ১২ টি বয়স্ক শিক্ষা ও ১৬৯ টি সহজ কুরআন শিক্ষা কেন্দ্রের মাধ্যমে পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত আছে। জেলার চারটি উপজেলায় চারটি মডেল রিসোর্স সেন্টার রয়েছে যা উপজেলার সাব-অফিস হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে। এছাড়া বারটি সাধারন রিসোর্স সেন্টার রয়েছে।

(ছ) যাকাত সংগ্রহ ও বিতরনঃ  সরকারী ভাবে যাকাত আদায় করে থাকে।‌আদায় অর্থের ৫০% জেলায় সরকারী ভাবে বিতরন করা হয়।

 


Share with :

Facebook Twitter